সুপার এইটের ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে নতুন সময়ে মাঠে নামছে বাংলাদেশ, দেখেনিন সময়

স্যার ভিভ রিচার্ডস স্টেডিয়ামে নিজেদের প্রথম সুপার এইটের ম্যাচ খেলতে নামবে বাংলাদেশ। এই মাঠে সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ হলো ১৯০। কানাডা বাহামার বিপক্ষে ২০২১ সালে এই রান করেছে। এই মাঠে সর্বনিম্ন দলীয় সংগ্রহ হলো ৪৭। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওমান এই বিশ্বকাপে ৪৭ রানে অল আউট হয়ে এই রেকর্ড গড়েছে।

এই মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সর্বোচ্চ সংগ্রহ ১৫৮। ২০১৩ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়েস্ট ইন্ডিজ এই রান করেছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ছাড়া আর কোনো টেস্ট প্লেয়িং ন্যাশনের এই মাঠে ১৫০+ রান করার রেকর্ড নেই। সাউথ আফ্রিকা এই মাঠে দুইটা ইনিংস খেলে একবার করেছে ১২০ আরেকবার করেছে ১৩৬।

ইংল্যান্ড বনাম নামিবিয়া, ইংল্যান্ড বনাম ওমান, অস্ট্রেলিয়া বনাম ওমান, স্কটল্যান্ড বনাম ওমান, অস্ট্রেলিয়া বনাম নামিবিয়া। এই বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত এই ৫ টা ম্যাচ এই মাঠে অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রত্যেকটা ম্যাচ ওয়ান সাইড ম্যাচ হয়েছে। কারণ প্রতিপক্ষ দলগুলোর শক্তিমত্তার মধ্যে অনেক বেশি ডিফারেন্স ছিলো।

স্লো উইকেটে ভালো বোলিং করে চ্যালেঞ্জ জানানোর মতো বিশ্বমানের বোলার নামিবিয়া,ওমান দলে ছিলো না। স্যার ভিভ রিচার্ডস স্টেডিয়ামের পিচ হাই স্কোরিং মনে হলেও প্রকৃতপক্ষে এই মাঠের পিচ এতোটাও হাই স্কোরিং হবে না যদি বোলাররা ঠিকঠাক মতো লাইন লেংথ মেইনটেইন করতে পারে।

১৫০-১৭০ রান এই পিচে ফাইটিং স্কোর হবে। অস্ট্রেলিয়া যদি আগে ব্যাটিং করে তাহলে বাংলাদেশের চেষ্টা করতে ১৪০/১৫০ এর মধ্যে অস্ট্রেলিয়াকে আটকানোর। আর বাংলাদেশ যদি আগে ব্যাটিং করে তাহলে বাংলাদেশের চেষ্টা করতে হবে মিনিমাম ১৬০ রান করার।

এই ম্যাচ জিততে হলে শান্ত, লিটন, তামিম, হৃদয় এই চারজনের তিনজনকে অবশ্যই ক্লিক করতে হবে। পাশাপাশি সাকিবকে অল রাউন্ডার পারফরম্যান্স শো করতে হবে। এক কথায় এই ম্যাচ জিততে হলে বাংলাদেশকে ১১০% দিতে হবে এবং দলীয় পারফরম্যান্সের বিকল্প নেই। উল্লেখ্য বাংলাদেশ বনাম অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় ২১ জুন সকাল সাড়ে ৬টায়।

উইনিং পারসেন্টেজ প্রেডিকশন :

অস্ট্রেলিয়া ৭০%, বাংলাদেশ ৩০%

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top