টি-টোয়েন্টি ক্যাপ্টেন্সি হারাচ্ছেন শান্ত, এসেছে ৩ গুরুতর অভিযোগ!

দীর্ঘ ১৭ বছর পর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার এইটে উঠলেও বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের এ্যাপ্রোচ নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন। বিশেষ করে অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত’র বিভিন্ন সময়ের মন্তব্য নিয়ে হচ্ছে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা। হারাতে পারেন টি-টোয়েন্টি অধিনায়কত্ব।

নাজমুল হোসেন শান্ত’র বিরুদ্ধে প্রথম অভিযোগ হচ্ছে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে কেন তাসকিনকে বাদ দেয়া হয়েছিল। টানা ১৯ ইনিংসে উইকেট পাওয়া তাসকিন বাদ দেয়ার কারণ কি। এই অভিযোগ তীর এখন শান্ত’র দিকে। কেননা হেড হাথুরু সরাসরি জানিয়ে দিয়েছেন এই সিদ্ধান্ত ছিল অধিনায়ক শান্ত’র।

দ্বিতীয় অভিযোগ হচ্ছে ভারত আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে কেন শরিফুলকে খেলানো হলো না। যেখানে ভারত আফগানিস্তানের ওপেনাররা সবাই ডান হাতি। সেখানে এক্সট্রা সাহায্য পেতো শরিফুল। যেখানে ডান হাতি বাঁহাতি কম্বিনেশনের কারণে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে তাওহীদ হৃদয়কে নিচে ব্যাট করানোর যুক্তি দেখিয়েছিলেন অধিনায়ক শান্ত। সেখানে কেন শরিফুলকে খেলানো হয়নি। আর শরিফুল বর্তমানে বাংলাদেশের পেসারদের মধ্যে অন্যতম সেরা।

তৃতীয় ও গুরুতর অভিযোগ হচ্ছে আফগানিস্তানের বিপক্ষে সেমি ফাইনালের সমীকরণ জানার পরও কেন সেমি ফাইনালের জন্য না খেলে ম্যাচ জয়ের জন্য খেললো বাংলাদেশ। বাংলাদেশ ৫০ রানে অল-আউট হতো তাও ভালো ছিল কিন্ত বাংলাদেশের সেমি ফািইনালের জন্য খেলা উচিৎ ছিল বলে মনে করছেন বিসিবি বোর্ড কর্তরা।

টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক দায়িত্ব থেকে শান্তকে সরিয়ে নিতে চাচ্ছে বিসিবি বোর্ড কর্তারা। ২ জুলাই বোর্ড মিটিংয়ে সব কিছু চুড়ান্ত হবে বলে জানা গেছে। সেখানে আলোচনা করা হবে কে হতে পারে টি-টোয়েন্টি পরবর্তি অধিনায়ক। যতদুর জানা সেখানে প্রথম যে নামটি আছে সেটি হলো তাসকিন। কেননা তিনি বর্তমানে টি-টোয়েন্টি ক্যাপটেনের দায়িত্ব আছেন। তাই শান্ত’র পর তার কাঁধে উঠছে অধিনায়কের দায়িত্ব।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top