পাকিস্তানকে লজ্জার হার উপহাল দিল ইউএসএ!

১২ বলে যুক্তরাষ্ট্রের প্রয়োজন ছিল ২১ রান। ১৯তম ওভারে আক্রমণে এসে মোহাম্মদ আমির দিলেন মাত্র ৬, ফলে অনেকটাই সহজ হয়ে গেল হারিস রউফের কাজ। কিন্তু শেষ ওভারে প্রথম তিন বলে ৩ রান দেওয়া রউফ ভুল করলেন ইয়র্কার দিতে গিয়ে।

চার-ছক্কার দুই বাউন্ডারিতে যুক্তরাষ্ট্রও স্কোরে সমতা টেনে ফেলে। এরপর সুপার ওভারের নাটকীয়তায় পাকিস্তানকে হারিয়ে ইতিহাস গড়েছে আইসিসির সহযোগী দেশটি।

পাকিস্তানের হয়ে ডেথ ওভারে দুর্দান্ত বল করা আমিরের হাতে তুলে দেওয়া হয় সুপার ওভারের দায়িত্ব। তবে এবার আর চাপটা নিতে পারলেন না তিনি, তিন ওয়াইড বলের সঙ্গে অতিরিক্ত রান মিলিয়ে দিলেন ৭।

ফলে মাত্র একটি চার মেরেও ১৮ রান পেয়ে যায় যুক্তরাষ্ট্র। পাকিস্তানের সেই রানতাড়ায় ম্যাচ পেন্ডুলামের মতো দু’দিকে ঘুরেছে। শেষ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রেরই শেষ হাসি, সুপার ওভারে তারা জয় তুলে নিলো ৫ রানে।

অভিষেক বিশ্বকাপ, তার ওপর ঘরের মাঠে। যুক্তরাষ্ট্র যেখানে অপরিচিত ক্রিকেটকে সাধারণের কাছে জনপ্রিয় করার সংগ্রাম করছে, একই সময় তাদের ক্রিকেটাররা সেই কাজটি আরও সহজে সম্পন্ন করার চ্যালেঞ্জ নিয়েছে। বিশ্ব ক্রিকেটের অন্যতম পরাশক্তি পাকিস্তানকে কাঁপিয়ে দিয়ে তারা জন্ম দিলো চলতি বিশ্বকাপের সবচেয়ে বড় আপসেটের। বাবর আজমদের নেওয়া ১৫৯ রান তারা ছুঁয়ে ফেলে পরে ব্যাট করতে নেমে। নাটকীয়তার তখনও কিছুটা বাকি, সুপার ওভারে জিতে যার ষোলকলা পূর্ণ করলো আমেরিকানরা।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top